**রংপুর নাগরিক সমাজ(RNS) সংগঠনের নিউজ পোর্টাল rnsnews24.com এ স্বাগতম।  *** প্রতিনিধি নিয়োগ*** রংপুর বিভাগের সকল জেলা ও রংপুর জেলার সকল উপজেলায় প্রতিনিধি নিয়োগ চলছে। যোগাযোগ- 01722-882770 ।  *** সবার আগে নির্ভুল সংবাদ পেতে নিয়মিত ভিজিট করুন।
বিচারপতি পরিচয়ে পুলিশ প্রটোকলে ঢাকা থেকে চাঁদপুর যাত্রা, অতঃপর আটক

বিচারপতি পরিচয়ে পুলিশ প্রটোকলে ঢাকা থেকে চাঁদপুর যাত্রা, অতঃপর আটক

বিচারপতি পরিচয়ে পুলিশ প্রটোকলে ঢাকা থেকে চাঁদপুর যাত্রা, অতঃপর আটক

নিউজ ডেস্কঃ
উচ্চ আদালতের বিচারক হিসেবে পরিচয় দিলেও আদতে ওই ব্যক্তি গ্রিল ও আলমারি তৈরির কারখানার শ্রমিক
উচ্চ আদালতের বিচারক হিসেবে পরিচয় দিয়ে ঢাকা থেকে চাঁদপুরের উদ্দেশে রওনা দেন তিনি। পথিমধ্যে বিভিন্ন সময় বিচারপতির প্রটোকল ও সুবিধাও নেন। তবে গন্তব্যস্থলে পৌঁছানোর পর জানা যায় বিপ্লব প্রধানের উচ্চ আদালতের বিচারক পরিচয়টি ভিত্তিহীন। পরবর্তীতে তাকে আটক করেছে পুলিশ।

ঢাকা থেকে চাঁদপুর যাওয়ার পথে কুমিল্লার দাউদকান্দি এলাকায় পৌঁছালে সেখানকার ট্রাফিক পুলিশের কাছে নিজেকে বিচারপতি হিসেবে পরিচয় দেন বিপ্লব প্রধান। পরে কুমিল্লা পুলিশের নিয়ন্ত্রণকক্ষ (কন্ট্রোল রুম) থেকে মুঠোফোনে মতলব দক্ষিণ থানার পুলিশকে জানানো হয়, সেখানে একজন বিচারপতি যাচ্ছেন।

এরপর পুলিশ বিপ্লব প্রধানকে প্রটোকল দিয়ে মতলব উপজেলার উত্তর দীঘলদী গ্রামে তার বাড়িতে পৌঁছে দিলে সেখানে যাওয়ার পর বিপ্লব প্রধানের ভুয়া বিচারপতির বিষয়টি পুলিশ জানতে পারে। পরে সেখান থেকে শুক্রবার (২০ মে) সকাল ১১টায় তাকে আটক করে থানায় নিয়ে আসা হয়।

জানা গেছে, অভিযুক্ত. বিপ্লব প্রধান (৪০) চাঁদপুর উপজেলা সদরের কলেজ গেট এলাকায় একটি গ্রিল ও আলমারি তৈরির কারখানার শ্রমিক। তিনি উত্তর দিঘলদী গ্রামের মৃত মাহাবুব প্রধানের ছেলে।

মতলব দক্ষিণ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোহাম্মদ মহিউদ্দিন মিয়া জানান, শুক্রবার সকাল সাড়ে ৯টায় কুমিল্লা পুলিশের নিয়ন্ত্রণকক্ষ থেকে দাউদকান্দি হয়ে গাড়িতে করে উপজেলার উত্তর দিঘলদী গ্রামে নিজের বাড়িতে যাত্রা করা উচ্চ আদালতের একজন বিচারপতিকে প্রয়োজনীয় প্রটোকল দেওয়ার জন্য জানানো হয়। এরপর দাউদকান্দি থেকে মতলব দক্ষিণ উপজেলার সীমানায় পৌঁছালে তাকে বিচারপতির প্রটোকল দিয়ে বাড়িতে নিয়ে যাওয়া হয়। এরপর ওই গাড়ির চালক গাড়ি নিয়ে অন্যত্র চলে যান।

তিনি আরও জানান, থানার পুলিশ কর্মকর্তা মো. রুহুল আমিন, মো. শামসুদ্দিন, আবুল ফজল ও মো. হেলাল উদ্দিন বিপ্লব প্রধানকে প্রটোকল দিয়ে তার বাড়ি পৌঁছে দিলেও বসতঘরের অবস্থাসহ অন্যান্য বিষয় দেখার পর পুলিশ কর্মকর্তাদের সন্দেহ হয়। পরে এ নিয়ে ওই ব্যক্তিকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হলে তিনি নিজেকে ভুয়া বিচারপতি হিসেবে পরিচয় দেওয়ার কথা স্বীকার করলে সেখানেই তাকে আটক করে পুলিশ। এ ব্যাপারে জিজ্ঞাসাবাদ চললেও এখন পর্যন্ত কোনো মামলা হয়নি।

সংবাদটি সবাইকে জানাতে আপনার স্যোস্যাল অ্যাকাউন্ট দিয়ে শেয়ার করুন




©২০২২ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত। আর এন এস নিউজ ২৪.কম।