**রংপুর নাগরিক সমাজ(RNS) সংগঠনের নিউজ পোর্টাল rnsnews24.com এ স্বাগতম।  *** প্রতিনিধি নিয়োগ*** রংপুর বিভাগের সকল জেলা ও রংপুর জেলার সকল উপজেলায় প্রতিনিধি নিয়োগ চলছে। যোগাযোগ- 01722-882770 ।  *** সবার আগে নির্ভুল সংবাদ পেতে নিয়মিত ভিজিট করুন।
শিরোনাম :
কাউনিয়ায় পূজা উদযাপন কমিটির সাথে আইন শৃঙ্খলা বাহিনির মতবিনিময় সভা চাঁদাবাজি করতে গিয়ে আটক জেলা যুব মহিলা লীগের আহবায়কের স্বামী ইমরান কাউনিয়ায় চার জুয়ারু গ্রেফতার রংপুর জেলা পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে বিদ্রোহী প্রার্থীও মুক্তিযোদ্ধা পীরগাছায় ওপেন হাউজ ডে তে জনগণের কথা শুনলেন পুলিশ সুপার রংপুর অবৈধভাবে বালু উত্তোলনকারীকে ৫০ হাজার টাকা জরিমানা রংপুর ডিসি কার্যালয়ে প্রতি বুধবার গণশুনানি, উপকৃত হচ্ছেন মানুষ রংপুরে পুষ্টি উপর র্কমশালা অনুষ্ঠিত বৃহস্পতিবার রংপুর সিটি কর্পোরেশনের দৃষ্টি নন্দন প্রধান ফটকের উদ্বোধন কাউনিয়ায় বাল্য বিয়ে প্রতিরোধ বিষয়ক সমন্বয় সভা
রংপুর জেলা পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে বিদ্রোহী প্রার্থীও মুক্তিযোদ্ধা

রংপুর জেলা পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে বিদ্রোহী প্রার্থীও মুক্তিযোদ্ধা

রংপুর জেলা পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে বিদ্রোহী প্রার্থীও মুক্তিযোদ্ধা

স্টাফ রিপোর্টার॥ আসন্ন রংপুর জেলা পরিষদের নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে দলীয় মনোনীত ও বিদ্রোহী প্রার্থী দুজনেই মুক্তিযোদ্ধা। দুজনের বাড়ি একই ওয়ার্ডে এবং একই এলাকায়। এই দুই বীরমুক্তিযোদ্ধাই আওয়ামীলীগের রাজনীতির সাথে জড়িত। সম্পর্কেও চাচা ভাতিজা। এ নিয়ে ভোটার ও সমর্থকদের মধ্যে দেখা দিয়েছে মিশ্র প্রতিক্রিয়া।
আওয়ামীলীগ দলীয় মনোনীত প্রার্থী এডভোকেট ইলিয়াছ আহমেদ সাবেক ছাত্রনেতা ও আওয়ামীলীগের বর্ষিয়ান নেতা এবং বীরমুক্তিযোদ্ধা। তিনি বর্তমানে রংপুর জেলা আওয়ামীলীগের সহ-সভাপতির দায়িত্বে রয়েছেন। এর আগে এডভোকেট ইলিয়াছ আহমেদ দায়িত্ব পালন করেছেন রংপুর জেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক, জেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক, জেলা যুবলীগের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকের। ভিপি ছিলেন রংপুর সরকারি কলেজ ছাত্র সংদের এবং উত্তোলন রংপুরে প্রথম জাতীয় পতাকা ১৯৭১ সালে রংপুরে ২৩ মার্চ ।
অপরদিকে আওয়ামীলীগের বিদ্রোহী চেয়ারম্যান প্রার্থী মোছাদ্দেক হোসেন বাবুল সমাজসেবক ও শিল্পপতি এবং বীরমুক্তিযোদ্ধা। তিনি বর্তমানে রংপুর জেলা আওয়ামীলীগের উপদেষ্টা। এর আগে মোছাদ্দেক হোসেন বাবলু ছিলেন জেলা আওয়ামীলীগের যুগ্ম আহবায়ক ও যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক। রংপুর জেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদ কমান্ডার হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন তিনি। আছেন মেট্রোপলিটন কমিউনিটি পুলিশিংয়ের সভাপতির দায়িত্বে।
রংপুর জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান পদে এই দুই বীরমুক্তিযোদ্ধার প্রতিদ্বন্দিতা নিয়ে অনেকেই মিশ্র প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেছেন। কেউ কেউ সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে লিখেছন বিব্রত পরিস্থিতির কথাও।

রংপুর জেলা আওয়ামীলীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মোতাহার হোসেন মন্ডল মওলা বলেন, সারাদেশের মতো রংপুরেও জননেত্রী শেখ হাসিনা আওয়ামীলীগের দুঃসময়ের পরিক্ষিত বর্ষিয়ান নেতা এডভোকেট ইলিয়াছ আহমেদ কে দলীয় মনোনয়ন দিয়েছেন। সেখানে দলীয় সভানেত্রীর বাহিরে গিয়ে বিদ্রোহী কিংবা দলের কারো স্বতন্ত্র প্রার্থী হওয়ার সুযোগ নেই।
অন্যদিকে রংপুর সিটি কর্পোরেশনের কাউন্সিলর ও এ নির্বাচনের ভোটার তৌহিদুল ইসলাম জানান, দুজনের শ্রদ্ধার মানুষ। দুজনের প্রতি ভালোবাসা রয়েছে, সেটি থাকবেও কিন্তু যেহেতু আমি রংপুর মেট্রোপলিটন কোতয়ালী থানা আওয়ামীলীগের সভাপতি তাই দলের প্রতি আনুগত্য প্রকাশ করা এবং দলের সিদ্ধান্তের সাথে থাকা আমার নৈতিক দায়িত্ব।

চন্দনপাট ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আমিনুর রহমান জানান, দুজনেই আওয়ামীলীগের রাজনীতির সাথে সম্পৃক্ত। দুজনেই সম্মানিত মানুষ। তারপরও দল যাকে মনোনয়ন দিয়েছে তাকেই জয়ী করতে হবে বলে মত দেন এই ভোটার।

বিদ্রোহী চেয়ারম্যান প্রার্থী মোছাদ্দেক হোসেন বাবলু বলেন, এবারের নির্বাচনে কোন মার্কা নেই, স্বতন্ত্রভাবে নির্বাচন করছি, যার সাথে আমার প্রতিদ্বন্দিতা তিনি আমার চাচা। আমি তাকে বাবার মতো শ্রদ্ধা করি। সাক্ষাতে কথা হয়েছে, আমি উনার কাছে দোয়া নিয়েছি।

দলীয় মনোনিত চেয়ারম্যান প্রার্থী এডভোকেট ইলিয়াছ আহমেদ বলেন, মহানমুক্তিযুদ্ধে অংশ নেয়ার পূর্ব থেকে আওয়ামী রাজনীতির সাথে জড়িত। করেছি ছাত্রলীগ, যুবলীগ। জেলা আওয়ামীলীগের বিভিন্ন পদে থেকে বর্তমানে সহ-সভাপতি পদে রয়েছি। দলের নেত্রী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা মুল্যায়ন করে আমাকে দলীয় মনোনয়ন দিয়েছে, আমি আওয়ামীলীগের সবার সাথে মিটিং করেছি, সবাই ঐক্যবদ্ধ। ইনশাআল্লাহ প্রধানমন্ত্রীকে জয় উপহার দিবো। বিদ্রোহী প্রার্থী প্রসঙ্গে তিনি বলেন, কেউ যদি প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার মনোনয়নের বাইরে গিয়ে নির্বাচন করে, তাহলে আমার এখানে কি বলার। তিনি তো প্রধানমন্ত্রী ও দলীয় প্রধানকে মানেন না। অথচ তিনি আওয়ামীলীগ করেন।

উল্লেখ্য আগামী ১৭ অক্টোবর অনুষ্ঠিত রংপুর জেলা পরিষদের নির্বাচনে আওয়ামীলীগের দলীয় মনোনয়ন চেয়ে আবেদন বীরমুক্তিযোদ্ধা এডভোকেট ইলিয়াস আহমেদ ও বীরমুক্তিযোদ্ধা মোছাদ্দেক হোসেন বাবলুসহ মোট ১৩ জন। যাছাই বাচাই শেষে বর্ষিয়ান নেতা বীরমুক্তিযোদ্ধা এডভোকেট ইলিয়াস আহমেদকে স্থানীয় নির্বাচনী বোর্ড দলীয় মনোনয়ন দেন।

সংবাদটি সবাইকে জানাতে আপনার স্যোস্যাল অ্যাকাউন্ট দিয়ে শেয়ার করুন




©২০২২ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত। আর এন এস নিউজ ২৪.কম।